ফুলকপির কয়টি জাত আছে?

পাবলিশঃ 2 years ago
দেখেছেনঃ 1868

ফুলকপির জাতের নাম

ফুলকপি একটি জনপ্রিয় শাকসবজি যা সারা বিশ্বে চাষ হয়। এটি একটি পুষ্টিকর সবজি যাতে ভিটামিন, খনিজ এবং ফাইবার সমৃদ্ধ। ফুলকপির বিভিন্ন জাতের মধ্যে রয়েছে, প্রতিটি জাতের নিজস্ব বৈশিষ্ট্য রয়েছে।


ফুলকপির জাতের শ্রেণীবিভাগ

ফুলকপির জাতের শ্রেণীবিভাগ বিভিন্ন উপায়ে করা যেতে পারে। একটি সাধারণ শ্রেণীবিভাগ হল ফুলের আকৃতি অনুসারে। এই শ্রেণীবিভাগ অনুসারে, ফুলকপির দুটি প্রধান ধরন রয়েছে:

  • গোলাকার ফুলকপি: এই ধরনের ফুলকপির ফুল গোলাকার হয়। এটি সবচেয়ে সাধারণ ধরণের ফুলকপি।
  • মটরশুঁটির মতো ফুলকপি: এই ধরনের ফুলকপির ফুল মটরশুঁটির মতো হয়। এটি গোলাকার ফুলকপির তুলনায় কম সাধারণ।
  • ফুলকপির আরেকটি শ্রেণীবিভাগ হল ফুলের রঙ অনুসারে। এই শ্রেণীবিভাগ অনুসারে, ফুলকপির তিনটি প্রধান ধরন রয়েছে:
  • সবুজ ফুলকপি: এই ধরনের ফুলকপির ফুল সবুজ হয়। এটি সবচেয়ে সাধারণ ধরণের ফুলকপি।
  • বেগুনি ফুলকপি: এই ধরনের ফুলকপির ফুল বেগুনি হয়। এটি সবুজ ফুলকপির তুলনায় কম সাধারণ।
  • সাদা ফুলকপি: এই ধরনের ফুলকপির ফুল সাদা হয়। এটি সবুজ ফুলকপির মতো সাধারণ।

বাংলাদেশে চাষযোগ্য ফুলকপির জাত

বাংলাদেশে বিভিন্ন জাতের ফুলকপি চাষ হয়। এর মধ্যে কয়েকটি জনপ্রিয় জাতের নাম হল:

  • বারি ফুলকপি-১: এই জাতের ফুলকপির ফুল গোলাকার এবং সবুজ রঙের হয়। এটি উচ্চ ফলনশীল এবং রোগ প্রতিরোধী।
  • বারি ফুলকপি-২: এই জাতের ফুলকপির ফুল গোলাকার এবং বেগুনি রঙের হয়। এটি উচ্চ ফলনশীল এবং রোগ প্রতিরোধী।
  • বারি ফুলকপি-৩: এই জাতের ফুলকপির ফুল গোলাকার এবং সাদা রঙের হয়। এটি উচ্চ ফলনশীল এবং রোগ প্রতিরোধী।
  • সুপার কিং: এই জাতের ফুলকপির ফুল গোলাকার এবং সবুজ রঙের হয়। এটি উচ্চ ফলনশীল এবং রোগ প্রতিরোধী।
  • ব্রিটানিয়া: এই জাতের ফুলকপির ফুল গোলাকার এবং সবুজ রঙের হয়। এটি উচ্চ ফলনশীল এবং রোগ প্রতিরোধী।

ফুলকপির চাষ পদ্ধতি

ফুলকপি চাষের জন্য উর্বর দোআঁশ মাটি সবচেয়ে উপযোগী। মাটিতে পর্যাপ্ত জল নিষ্কাশন ব্যবস্থা থাকা উচিত। ফুলকপির বীজ বপনের আগে মাটি ভালোভাবে চাষ করে নিতে হবে। বীজ বপনের জন্য উপযুক্ত সময় হল মধ্য সেপ্টেম্বর থেকে মধ্য অক্টোবর। বীজ বপনের পর নিয়মিত সেচ দিতে হবে। ফুলকপির ফুল পূর্ণাঙ্গ হওয়ার পর তা কেটে সংগ্রহ করতে হয়।


ফুলকপির উপকারিতা

ফুলকপি একটি পুষ্টিকর সবজি হওয়ায় এর অনেক উপকারিতা রয়েছে। এর মধ্যে কয়েকটি উপকারিতা হল:

  • রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি: ফুলকপিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে, যা একটি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরকে ক্ষতিকর ফ্রি র‍্যাডিকেল থেকে রক্ষা করে। ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।
  • ক্যান্সার প্রতিরোধ: ফুলকপিতে সালফোরাপেন নামে একটি যৌগ রয়েছে, যা ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি রোধে সাহায্য করে। গবেষণায় দেখা গেছে যে, ফুলকপি স্তন ক্যান্সার, কোলন ক্যান্সার এবং প্রোস্টেট ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে পারে।
  • হৃদরোগের ঝুঁকি কমানো: ফুলকপিতে ফাইবার এবং পটাসিয়াম রয়েছে, যা হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। ফাইবার কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে এবং পটাসিয়াম রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।
  • ওজন কমাতে সাহায্য: ফুলকপিতে ফাইবার রয়েছে, যা হজমে সাহায্য করে এবং ক্ষুধা কমাতে সাহায্য করে। ফলে ওজন কমাতে সাহায্য করে।
  • ত্বকের স্বাস্থ্যের উন্নতি: ফুলকপিতে ভিটামিন সি রয়েছে, যা ত্বকের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। ভিটামিন সি ত্বকের কোলাজেন তৈরিতে সাহায্য করে, যা ত্বককে মসৃণ এবং টানটান রাখতে সাহায্য করে।

ফুলকপির ব্যবহার

ফুলকপি বিভিন্নভাবে খাওয়া যায়। এটি ভাজি, ভর্তা, ঝোল, স্যুপ, সালাদ ইত্যাদি তৈরিতে ব্যবহার করা যায়। ফুলকপির কচি পাতাও খাওয়া যায়।


ফুলকপির সংরক্ষণ

ফুলকপি ভালোভাবে ধুয়ে ঠান্ডা জায়গায় রাখলে ৫-৭ দিন ভালো থাকে। ফুলকপি ফ্রিজে রাখলে ১০-১২ দিন ভালো থাকে।


ফুলকপির পুষ্টিগুণ

  • ফুলকপি একটি পুষ্টিকর সবজি। এতে ভিটামিন, খনিজ এবং ফাইবার সমৃদ্ধ। ফুলকপিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, ভিটামিন কে, ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম এবং ফাইবার রয়েছে।
  • ভিটামিন সি: ফুলকপি ভিটামিন সি এর একটি ভালো উৎস। ১০০ গ্রাম ফুলকপিতে প্রায় ৭৩ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি থাকে। ভিটামিন সি একটি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরকে ক্ষতিকর ফ্রি র‍্যাডিকেল থেকে রক্ষা করে। ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।
  • ভিটামিন কে: ফুলকপি ভিটামিন কে এর একটি ভালো উৎস। ১০০ গ্রাম ফুলকপিতে প্রায় ৪০ মাইক্রোগ্রাম ভিটামিন কে থাকে। ভিটামিন কে রক্ত জমাট বাঁধার জন্য প্রয়োজনীয়। এছাড়াও, ভিটামিন কে হাড়ের স্বাস্থ্যের জন্যও ভালো।
  • ক্যালসিয়াম: ফুলকপি ক্যালসিয়ামের একটি ভালো উৎস। ১০০ গ্রাম ফুলকপিতে প্রায় ৪১ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম থাকে। ক্যালসিয়াম হাড় এবং দাঁতের স্বাস্থ্যের জন্য প্রয়োজনীয়।
  • পটাসিয়াম: ফুলকপি পটাসিয়ামের একটি ভালো উৎস। ১০০ গ্রাম ফুলকপিতে প্রায় ৩৯০ মিলিগ্রাম পটাসিয়াম থাকে। পটাসিয়াম রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।
  • ফাইবার: ফুলকপি ফাইবারের একটি ভালো উৎস। ১০০ গ্রাম ফুলকপিতে প্রায় ২.১ গ্রাম ফাইবার থাকে। ফাইবার হজমে সাহায্য করে এবং ক্ষুধা কমাতে সাহায্য করে।

ফুলকপি সম্পর্কিত অন্যান্য প্রশ্ন সমূহ

ফুলকপির কয়টি জাত আছে?
ফুলকপি খাওয়ার উপকারিতা কি?
ফুলকপি কতদিন সংরক্ষণ রাখা যেতে পারে?
ফুলকপিতে কত ক্যালোরি আছে?
ফুলকপি সিদ্ধ করা কি স্বাস্থ্যকর?
ফুলকপি খাওয়ার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া কি?
বেগুনি ফুলকপি কি?
ফুলকপি কার্বোহাইড্রেটে বেশি?
থাইরয়েড রোগীদের কেন বাঁধাকপি খাওয়া উচিত নয়?
ফুলকপি আপনার জন্য খারাপ কেন?
ফুলকপি কি কাঁচা খাওয়া যায়?
ফুলকপি কি স্বাস্থ্যকর কাঁচা বা রান্না করা?
ফুলকপি পাতা খাওয়া যাবে কি?
ভাজা ফুলকপি কি স্বাস্থ্যকর?
ফুলকপি কেন আপনার খাদ্য তালিকায় রাখা উচিত?
ফুলকপি বেশি খেলে কি হয়?
প্রতিদিন ফুলকপি খাওয়া কি ঠিক?
ফুলকপির কোন অংশে খাওয়া যায়?
পুরনো ফুলকপি খেলে কি হবে?
থাইরয়েড হলে ফুলকপি খাওয়া যাবে কিনা
আপনার জন্য কোনটি ভালো ব্রকলি  নাকি ফুলকপি ?
ফুলকপি কি একটি সুপারফুড?
ফুলকপিতে কোন ভিটামিন পাওয়া যায়?
ফুলকপিতে কি প্রোটিন বেশি?
ফুলকপি কি প্রতিদিন খাওয়া যাবে?
ফুলকপি কি শরীরের রং ফর্সা করে তোলে?
ফুলকপির বীজ কিভাবে হয় ?