নারিকেল তেল

টপিক টি তৈরি করা হয়েছে one year ago
547বার দেখা হয়েছে
বিবরণ যোগ করুন
  • আজকাল সকলেই কোনো না কোনো ত্বকের সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন। বিশেষ করে মহিলারা, মেয়েরা ব্রণ, বলিরেখা, শুষ্কতা এবং দাগ দ্বারা সমস্যায় পড়ে। এর পিছনে কারণ হল ঘুমের অভাব, গভীর রাত পর্যন্ত মোবাইল চালানো, রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করা এবং সঠিক না খাওয়া। ব্রণ থেকে মুক্তি পেতে এবং উজ্জ্বল ত্বক পেতে মানুষ হাজার হাজার টাকা খরচ করে বিউটি প্রোডাক্টের জন্য। কিন্তু তারপরও এর ফলে বিশেষ কিছু পাওয়া যায় না।এমন পরিস্থিতিতে আমরা আপনাকে এমন একটি ঘরোয়া উপায় বলতে যাচ্ছি, যার সাহায্যে আপনি ত্বকের যাবতীয় সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

    নারিকেল খাওয়ার উপকারিতা অনেকেরই জানা থাকলেও তা প্রয়োগের অনেক উপকারিতা রয়েছে। চুলের মজবুত করার জন্য নারিকেল তেল প্রতিটি ঘরেই লাগানো হয়। কিন্তু জানেন কি এটি মুখে লাগালেও অনেক উপকার পাওয়া যায়। রাতে ঘুমানোর আগে মুখে নারিকেল তেল লাগালে ত্বকের নানা ধরনের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

    ১. নারিকেল তেল ত্বকের জন্য প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার হিসেবে কাজ করে, এটি ত্বকের মরা চামড়া দূর করে ত্বক উজ্জ্বল করে। ত্বক খুব তৈলাক্ত হলে নারিকেল তেল লাগান না।

    ২. নারিকেল তেল চর্মরোগ, ডার্মাটাইটিস, একজিমা এবং ত্বকের পোড়া রোগে ব্যবহার করা যেতে পারে।

    ৩. নারিকেল তেল স্ট্রেচ মার্ক দূর করতেও সাহায্য করে এবং ঠোঁট ফাটা রোধ করতে নিয়মিত ঠোঁটে লাগাতে পারেন।

    ৪. রাতে ঘুমানোর আগে সামান্য নারিকেল তেল নিয়ে মুখের দাগের উপর লাগান। এটি আপনার ত্বকের জন্য খুবই উপকারী হবে।

    ৫. সারা মুখে নারিকেল তেল লাগিয়ে হালকা হাতে ম্যাসাজ করতে পারেন। সকালে ঘুম থেকে উঠে হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

    ৬. চুল ঘন, লম্বা এবং চকচকে করতে নারিকেল তেল খুবই সহায়ক।

    ৭. মাত্র পাঁচ মিনিট নারিকেল তেল দিয়ে মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করলে শুধু রক্ত ​​সঞ্চালনই বাড়ে না, হারানো পুষ্টিও পূরণ হয়। প্রতিদিন নারিকেল তেল দিয়ে ম্যাসাজ করলে চুলে খুশকির মতো সমস্যা হয় না।

    ৮. ঘুমানোর আগে, আপনার হাতে উষ্ণ নারিকেল তেল নিন এবং আপনার মুখে এবং ঘাড়ে লাগান এবং কয়েক মিনিটের জন্য হালকা হাতে ম্যাসাজ করুন। এতে ত্বক নরম ও চকচকে থাকবে।

নারিকেল তেল কত প্রকার?

নারিকেল তেলের প্রকারভেদ
  • নারিকেল তেলের প্রকারভেদ সম্পর্কে জেনে নিন:১. অর্গানিক নারিকেল তেলঅর্গানিক নারিকেল তেল সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক প্রক্রিয়ায় জন্মানো নারিকেল থেকে বের করা হয়। কোন রাসায়নিক সার বা কীটনাশক ব্যবহার করা হয় না।২. নন-অর্গানিক নারিকেল তেলনন-অর্গানিক নারিকেল তেল নাম থেকে বোঝা যায়, এই ধরনের নারিকেল তেল উৎপাদনে প্রচুর পরিমাণে নারিকেল ব্যবহার করা হয়। এতে রাসায়নিক ও কীটনাশক ব্যবহার করা সাধারণ ব্যাপার। তবে, নারিকেল শক্ত পৃষ্ঠের কারণে, এটি এর অভ্যন্তরীণ অংশে খুব বেশি পার্থক্য করে না।৩. পরিশোধিত নারিকেল তেলপরিশোধিত নারিকেল তেল প্রস্তুত করতে ভারী প্রক্রিয়াকরণ ব্যবহার করা হয়। এতে বিভিন্ন ধরনের সংযোজন এবং সংরক্ষণকারী ব্যবহার করা হয়। এর সাথে, এটি একটি সুন্দর এবং পরিষ্কার রঙ দিতে ব্লিচিং প্রক্রিয়াও ব্যবহার করা হয়। পরিশোধিত নারিকেল তেল সাধারণত পুরানো এবং শুকনো নারিকেল থেকে বের করা হয়।৪. অপরিশোধিত নারিকেল তেলঅপরিশোধিত নারিকেল তেলকে ভার্জিন নারিকেল তেলও বলা হয় কারণ এটি কোনো ভেজাল ছাড়াই সম্পূর্ণ খাঁটি নারিকেল তেল। গাছ থেকে নারিকেল তোলার ২-৩ দিনের মধ্যে এই ধরনের নারিকেল তেল বের করা হয়। এই ধরনের তেল চুল এবং ত্বকে প্রয়োগ করা ভাল।৫. ঠান্ডা চাপা নারিকেল তেলপ্রকৃতপক্ষে এটি তেল আহরণের একটি কৌশল যাতে নারিকেল তেল বা দুধ বের করার সময় কোনো তাপ ব্যবহার করা হয় না, যার কারণে এর গুণমান এবং গুণমান একেবারে শীর্ষ মানের। এই প্রক্রিয়ায় খুব অল্প পরিমাণে তেল উৎপন্ন হয় এবং এই প্রক্রিয়াটিও অত্যন্ত ব্যয়বহুল, যার কারণে কোল্ড-প্রেসড পদ্ধতিতে তেল বের করাও অনেক ব্যয়বহুল। ৬. এক্সপেলার চাপা নারিকেল তেলএটি একটি তেল নিষ্কাশন কৌশল যা কোল্ড-প্রেসিং এর বিপরীত। এই ধরনের প্রযুক্তি সাধারণত তেলের ব্যাপক উৎপাদনে ব্যবহৃত হয়, যাতে উচ্চ চাপ এবং তাপ ব্যবহার করা হয়, যার কারণে এর অনেক পুষ্টি এবং বৈশিষ্ট্য নষ্ট হয়ে যায়।

মুখে নারিকেল তেল লাগালে কি হয়?

আমরা অনেক সময় মুখে এবং আমাদের শরীরে নারিকেল এর তেল লাগিয়ে থাকি। মুখে এবং শরীরে নারিকেল তেল লাগালে কি হয়?
  • নারিকেল তেল শুধুমাত্র খাবারে ব্যবহার করলে যেমন স্বাস্থ্যের জন্য ভালো ঠিক তেমনি এর ব্যবহার ত্বকের জন্যও অনেক ভালো। আমরা আমাদের ত্বকের জন্য অনেক বিউটি প্রোডাক্ট ব্যবহার করি, কিন্তু ঘরেই এমন অনেক জিনিস আছে যেগুলো দিয়ে আপনি আপনার ত্বকের বিশেষ যত্ন নিতে পারেন।

    নারকেল তেল, যদি পরিমিতভাবে ব্যবহার করা হয়, তবে সব ধরনের ত্বকের জন্যই ভালো। এতে ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে যা ত্বককে হাইড্রেট করতে এবং রক্ষা করতে ব্যবহৃত হয়। এতে লিনোলিক অ্যাসিড, ভিটামিন এফ এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে। সারারাত মুখে লাগালে অনেক উপকার পাওয়া যায়। নারকেল তেল আমাদের ত্বকের জন্য নাইট সিরাম হিসাবে কাজ করে।

  • নিয়মিত নাভি মধ্যে নারিকেল তেল লাগালে বদহজম, বমি, গ্যাস এবং অন্যান্য পেট সমস্যা উপশম করতে পারে। নারিকেল তেলে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য পাওয়া যায়, যা মহিলাদের মাসিকের সময় ব্যথা থেকে মুক্তি দেয়।

  • নারিকেল তেলে রয়েছে ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এর মত পুষ্টি উপাদান যা আমাদের দেহের জন্য খুবই উপকারি। খাবারে নারিকেল তেল যুক্ত করলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। খাদ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, খাবারে নারকেল তেল যোগ করলে তা পরিপাকতন্ত্রকে শক্তিশালী করে এবং ক্যালসিয়ামের কারণে হাড় মজবুত করে।

  • তৈলাক্ত ত্বকে নারিকেল তেল ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। যাদের মুখে ব্রণ আছে তারাও নারিকেল তেল নারিকেল এর তেল ব্যবহার এড়িয়ে চলুন। নারিকেের তেল ব্যবহারের কারণে ব্রণ আরও বাড়তে পারে।

  • পুষ্টিকর উপাদান প্রতি 100 গ্রাম পরিমাণ
    জল 0.03 গ্রাম
    শক্তি ৮৯২ কিলোক্যালরি
    মোট চর্বি 99.06 গ্রাম
    ক্যালসিয়াম 1 মি.গ্রা
    আয়রন 0.05 মিলিগ্রাম
    দস্তা 0.02 মিলিগ্রাম
    ভিটামিন ই (আলফা টোকোফেরল) 0.11 মিলিগ্রাম
    ভিটামিন-কে (ফাইলোকুইনোন) 0.6μg
    মোট স্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড 82.475 গ্রাম
    মোট মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড 6.332 গ্রাম
    মোট পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড 1.702 গ্রাম