ধরিত্রী দিবস: আমাদের গ্রহের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও প্রতিশ্রুতির দিন

টপিক টি তৈরি করা হয়েছে one month ago
107বার দেখা হয়েছে

প্রতি বছর ২২শে এপ্রিল পালিত হয় বিশ্ব ধরিত্রী দিবস। ১৯৭০ সালে প্রথমবার পালিত এই দিবসটির উদ্দেশ্য হলো আমাদের গ্রহ পৃথিবীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা এবং এর পরিবেশ রক্ষার জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হওয়া।

ধরিত্রী দিবসের ইতিহাস:

১৯৬৯ সালে, ক্যালিফোর্নিয়ার সান্টা বারবারায় একটি তেলক্ষেত্রে তেল ফুটোর ঘটনা ঘটে। এর ফলে ব্যাপক পরিবেশ দূষণের সৃষ্টি হয়। এই ঘটনা দেশব্যাপী পরিবেশবাদী আন্দোলনকে আরও তীব্র করে তোলে। ১৯৭০ সালে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেনেটর গেইলর্ড নেলসন ২২শে এপ্রিলকে "পরিবেশ দিবস" হিসেবে ঘোষণা করেন। এই দিনটি 20 মিলিয়নেরও বেশি মানুষ বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করে। এরপর ১৯৯০ সালে, এই দিবসটি আন্তর্জাতিকভাবে "বিশ্ব ধরিত্রী দিবস" হিসেবে পালিত হতে শুরু করে।

ধরিত্রী দিবসের তাৎপর্য:

ধরিত্রী দিবস আমাদের গ্রহের প্রতি আমাদের দায়িত্ব মনে করিয়ে দেয়। পৃথিবী আমাদের একমাত্র বাসস্থান, এবং এর পরিবেশ রক্ষা আমাদের সকলের কর্তব্য। এই দিনটি আমাদেরকে পরিবেশ দূষণ, জলবায়ু পরিবর্তন, বন উজাড় এবং অন্যান্য পরিবেশগত সমস্যা সম্পর্কে সচেতন করে তোলে।

আমরা কীভাবে ধরিত্রী দিবস পালন করতে পারি:

গাছ লাগান: গাছপালা পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তাই ধরিত্রী দিবসে আমরা গাছ লাগিয়ে আমাদের গ্রহকে আরও সবুজ করতে পারি।

পরিবেশ দূষণ রোধ: আমাদের যানবাহন, কলকারখানা এবং অন্যান্য উৎস থেকে নির্গত দূষণ রোধে পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।

পরিবেশবান্ধব পণ্য ব্যবহার: আমাদের পরিবেশবান্ধব পণ্য ব্যবহার করা উচিত যাতে পরিবেশের উপর ক্ষতিকর প্রভাব না পড়ে।

শক্তি সাশ্রয়: আমাদের বিদ্যুৎ, জল এবং অন্যান্য প্রাকৃতিক সম্পদের অপচয় রোধ করা উচিত।

সচেতনতা বৃদ্ধি: আমাদের পরিবেশ সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য আমরা আমাদের পরিবার, বন্ধুবান্ধব এবং সমাজের অন্যান্য সদস্যদের সাথে কথা বলতে পারি।




আমাদের করণীয়:


পরিবেশবান্ধব জীবনযাপন: আমাদের পরিবেশবান্ধব জীবনযাপন করার চেষ্টা করা উচিত। আমরা যানবাহনের পরিবর্তে হেঁটে, সাইকেলে চড়ে বা পাবলিক ট্রান্সপোর্ট ব্যবহার করে যাতায়াত করতে পারি। আমরা কম বিদ্যুৎ ব্যবহার করতে পারি এবং ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার না করলে বন্ধ করে রাখতে পারি।


পুনর্ব্যবহার ও পুনর্ব্যবহার: আমাদের প্লাস্টিক, কাগজ, কাচ এবং ধাতুর মতো জিনিসপত্র পুনর্ব্যবহার করা উচিত। আমরা জৈব-ক্ষয়যোগ্য জিনিসপত্র ব্যবহার করা উচিত এবং খাদ্য অপচয় রোধ করা উচিত।


স্থানীয় উৎপাদন সমর্থন: আমাদের স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত খাবার ও পণ্য কেনার চেষ্টা করা উচিত। এটি পরিবহনের ফলে সৃষ্ট দূষণ কমাতে সাহায্য করবে।


পরিবেশবাদী সংস্থাগুলিকে সমর্থন: আমরা পরিবেশ রক্ষার জন্য কাজ করা বিভিন্ন পরিবেশবাদী সংস্থাগুলিকে সমর্থন করতে পারি।




ধরিত্রী দিবসের বার্তা:


ধরিত্রী দিবস আমাদের মনে করিয়ে দেয় যে আমরা এই গ্রহের সাথে অঙ্গাঙ্গীভাবে সম্পর্কিত। আমাদের পরিবেশের যত্ন নেওয়া আমাদের নিজস্ব স্বাস্থ্য ও কল্যাণের জন্য অপরিহার্য। আসুন আমরা সকলে মিলে প্রতিশ্রুতি নিই যে আমরা আমাদের গ্রহকে রক্ষা করার জন্য কাজ করব এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটি টেকসই বিশ্ব তৈরি করব।




এই দিনটি পালনের জন্য কিছু ধারণা:


গাছ লাগানো অনুষ্ঠান: আপনি আপনার এলাকায় একটি গাছ লাগানো অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে পারেন।

পরিবেশ পরিষ্কার অভিযান: আপনি আপনার এলাকার একটি পরিষ্কার অভিযানে অংশগ্রহণ করতে পারেন।

পরিবেশ বিষয়ক আলোচনা সভা: আপনি পরিবেশ বিষয়ক একটি আলোচনা সভার আয়োজন করতে পারেন।

প্রকৃতি উপভোগ: আপনি প্রকৃতির সাথে কিছু সময় কাটাতে পারেন, যেমন হাইকিং, ক্যাম্পিং বা পার্কে যাওয়া।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সচেতনতা বৃদ্ধি: আপনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পরিবেশ সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে পারেন।

ধরিত্রী দিবস শুধু একটি দিনের জন্য নয়, বরং প্রতিদিন। আসুন আমরা সকলে মিলে প্রতিদিন পরিবেশ রক্ষার জন্য কাজ করি এবং আমাদের গ্রহকে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটি সুন্দর ও বাসযোগ্য স্থান হিসেবে ছেড়ে যাই।

প্রশ্ন সমূহ

আপনার মতামত দিন