পাথরকুচি পাতার গুণাগুণ কী?

পাবলিশঃ one month ago
দেখেছেনঃ 307

পাথরকুচি পাতার গুণাগুণ কী?

পাথরকুচি পাতার গুণাগুণ:

ঔষধি গুণাবলী:


কাশি ও সর্দি: পাথরকুচি পাতার রস কাশি ও সর্দির জন্য বহুল ব্যবহৃত ঔষধ। পাতা গরম পানিতে ফুটিয়ে সেই রস খেলে কাশি ও সর্দি দ্রুত ভালো হয়।

জ্বর: জ্বর হলে পাথরকুচি পাতা, তুলসী পাতা ও কাঁচা মরিচ একসাথে বেটে রস খেলে জ্বর নিয়ন্ত্রণে আসে।

পেটের সমস্যা: অজীর্ণ, পেট ফাঁপা, আমাশয়, পেটের ব্যথা ইত্যাদি পেটের সমস্যার জন্য পাথরকুচি পাতার রস খুবই উপকারী।

ত্বকের সমস্যা: মুখে ব্রণ, ফুসকুড়ি, চুলকানি, ঘামাচি ইত্যাদি ত্বকের সমস্যার জন্য পাথরকুচি পাতা বেটে প্রভাবিত স্থানে লাগালে উপকার পাওয়া যায়।

বাতব্যথা: বাতব্যথা ও অস্থিসন্ধিবাতের ব্যথা কমাতে পাথরকুচি পাতার রস বা পাতা বেটে ব্যথাযুক্ত স্থানে লাগালে উপকার পাওয়া যায়।

ডায়াবেটিস: পাথরকুচি পাতা রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।

মাথাব্যথা: মাথাব্যথা দূর করতে পাথরকুচি পাতার রস কপালে লাগালে উপকার পাওয়া যায়।

কিডনি রোগ: পাথরকুচি পাতা কিডনির পাথর গঠন রোধে সাহায্য করে।

উচ্চরক্তচাপ: উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে পাথরকুচি পাতার রস উপকারী।

অন্যান্য গুণাবলী:


সবজি: পাথরকুচি পাতা তরকারি হিসেবে রান্না করে খাওয়া যায়।

পশুর খাদ্য: পাথরকুচি পাতা গরুর, ছাগলের, ভেড়ার ইত্যাদি পশুর খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

জৈব সার: পাথরকুচি পাতা পচিয়ে জৈব সার তৈরি করা যায়।

পাথরকুচি পাতা ব্যবহারের সতর্কতা:


গর্ভবতী ও স্তন্যদানকারী মায়েদের পাথরকুচি পাতা ব্যবহারের পূর্বে চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করা উচিত।

অতিরিক্ত পরিমাণে পাথরকুচি পাতা ব্যবহারে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে।

কোন ঔষধের সাথে পাথরকুচি পাতা সেবন করলে কি প্রতিক্রিয়া হতে পারে তা জানতে চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করা উচিত।

উল্লেখ্য:


এই তথ্যগুলো কেবল সাধারণ জ্ঞানের জন্য। কোন ঔষধি গুণাগুণ সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়ার জন্য চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করা উচিত।

পাথর কুচি সম্পর্কিত অন্যান্য প্রশ্ন সমূহ

পাথরকুচি পাতার গুণাগুণ কী?
পাথর কুচি গাছের ঔষধি গুণাগুন
পাথরকুচির বৈজ্ঞানিক নাম কি?
পাথর কুচি গাছের উপকারিতা কি?
পাথরকুচি পাতার উপকারিতা
পাথর কুচি পাতার বৈশিষ্ট্য
পাথরকুচি পাতার রস খেলে কি হয়?